ঢাকা ০৩:৪৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সুন্দরবনের আগুন নিয়ন্ত্রণে

  • ইউএনবি
  • আপডেট সময় : ১১:১৮:৪৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ৫ মে ২০২৪
  • ২৯ বার পড়া হয়েছে

বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জ উপজেলায় সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগের আওতাধীন চাঁদপাই রেঞ্জের আমরবুনিয়া ক্যাম্পের বনাঞ্চলের আগুন এখন নিয়ন্ত্রণে আছে বলে জানিয়েছে পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়।

এদিকে আগুন লাগার সুনির্দিষ্ট কারণ অনুসন্ধান করতে বন বিভাগের পক্ষ থেকে ৩ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

রবিবার মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতির মাধ্যমে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, আগুন গাছের উপরে বা ডালপালায় বিস্তৃত হয়নি, শুধু মাটির উপরে বিক্ষিপ্তভাবে ছড়িয়ে পড়েছে। ঘটনাস্থলে বন বিভাগের পাশাপাশি ফায়ার সার্ভিসের কয়েকটি ইউনিট, নৌবাহিনী, পুলিশ, জেলা প্রশাসন, উপজেলা প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি, সিপিজি, স্বেচ্ছাসেবক ও স্থানীয় জনগণ আগুন নেভাতে সহায়তা করছে। এছাড়া, বিমান বাহিনীর একটি হেলিকপ্টারও উপর থেকে পানি ছিটিয়ে সহায়তা করেছে।

বিবৃতিতে বলা হয, শনিবার (৪ মে) দুপুর আনুমানিক সাড়ে ৩টার দিকে আগুন লাগার ঘটনা প্রথম জানা যায়। এরপরই বন বিভাগের পাশাপাশি ফায়ার সার্ভিস এবং সংশ্লিষ্ট সরকারি অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের লোকজন ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। বন বিভাগের কর্মীরা স্থানীয় কমিউনিটি পেট্রোলিং গ্রুপ, ভিলেজ টাইগার রেসপন্স টিম এবং স্থানীয় জনগণের সহায়তায় আগুন লাগার চারপাশে ফায়ার লাইন কাটার কাজ শুরু করে। কিন্তু ওই সময় ভাটার কারণে খালে কোনো পানি না থাকায় আগুনে পানি দেওয়া সম্ভব হয়নি।

রাতেই বন বিভাগের নিজস্ব ফায়ার ফাইটিং ইকুপমেন্ট ও পানি দেওয়ার মেশিনে এনে সেটি রেডি করে পাইপ লাগিয়ে সেট করে রাখা হয়।

রবিবার ভোর থেকেই বন বিভাগের কর্মী, ফায়ার সার্ভিস, স্থানীয় জনগণ, সিপিজি, সিএমসির লোকদের নিয়ে আগুন লাগার স্থানে চারদিকে ফায়ার লাইন কাটার পাশাপাশি পানি দিয়ে আগুন নেভানোর কাজ পুরোদমে শুরু করে।

আগুন লাগার স্থানের চারদিকে প্রায় ৫ একর জায়গা জুড়ে ফায়ার লাইন কেটে আগুন নেভানোর কাজ চলছে। যেহেতু আগুন মাটির নিচ দিয়ে গাছের শিকড়ের মধ্যে দিয়ে ছড়িয়ে পড়েছে, তাই সতর্কতার সঙ্গে আগুন নিভাতে হচ্ছে। আগামী কয়েক দিন আগুন নেভানোর কাজ চলবে বলে বিবৃতিতে জানানো হয়।

বনের আগুন আপাতত নিভে গেছে বা নিয়ন্ত্রণে এসেছে বলে মনে হলেও আবার যেকোনো সময় এটি নতুনভাবে ছড়িয়ে পড়তে পারে।

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনমন্ত্রী সাবের হোসেন চৌধুরী এবং মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. ফারহিনা আহমেদ সুন্দরবনের আগুন নির্বাপন কর্মকাণ্ড সার্বক্ষণিকভাবে তদারকি ও সমন্বয় করছেন।

এছাড়া প্রধানমন্ত্রী বিষয়টি জানেন এবং তিনি নিয়মিত খোঁজখবর রাখছেন বলেও জানানো হয়।

এ কর্মকাণ্ড সরেজমিনে তদারকি করতে প্রধান বন সংরক্ষক মো. আমীর হোসাইন চৌধুরী সুন্দরবনের ঘটনাস্থলে গিয়েছেন। তিনি এ বিষয়ে সর্বশেষ অগ্রগতি ও কর্মপন্থা বিষয়ে আজ সন্ধ্যা সাড়ে ৮টায় খুলনায় সুন্দরবন পশ্চিম বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তার কার্যালয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফ করবেন।

ট্যাগস :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

আপলোডকারীর তথ্য

পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপনে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশনা

সুন্দরবনের আগুন নিয়ন্ত্রণে

আপডেট সময় : ১১:১৮:৪৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ৫ মে ২০২৪

বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জ উপজেলায় সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগের আওতাধীন চাঁদপাই রেঞ্জের আমরবুনিয়া ক্যাম্পের বনাঞ্চলের আগুন এখন নিয়ন্ত্রণে আছে বলে জানিয়েছে পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়।

এদিকে আগুন লাগার সুনির্দিষ্ট কারণ অনুসন্ধান করতে বন বিভাগের পক্ষ থেকে ৩ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

রবিবার মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতির মাধ্যমে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, আগুন গাছের উপরে বা ডালপালায় বিস্তৃত হয়নি, শুধু মাটির উপরে বিক্ষিপ্তভাবে ছড়িয়ে পড়েছে। ঘটনাস্থলে বন বিভাগের পাশাপাশি ফায়ার সার্ভিসের কয়েকটি ইউনিট, নৌবাহিনী, পুলিশ, জেলা প্রশাসন, উপজেলা প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি, সিপিজি, স্বেচ্ছাসেবক ও স্থানীয় জনগণ আগুন নেভাতে সহায়তা করছে। এছাড়া, বিমান বাহিনীর একটি হেলিকপ্টারও উপর থেকে পানি ছিটিয়ে সহায়তা করেছে।

বিবৃতিতে বলা হয, শনিবার (৪ মে) দুপুর আনুমানিক সাড়ে ৩টার দিকে আগুন লাগার ঘটনা প্রথম জানা যায়। এরপরই বন বিভাগের পাশাপাশি ফায়ার সার্ভিস এবং সংশ্লিষ্ট সরকারি অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের লোকজন ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। বন বিভাগের কর্মীরা স্থানীয় কমিউনিটি পেট্রোলিং গ্রুপ, ভিলেজ টাইগার রেসপন্স টিম এবং স্থানীয় জনগণের সহায়তায় আগুন লাগার চারপাশে ফায়ার লাইন কাটার কাজ শুরু করে। কিন্তু ওই সময় ভাটার কারণে খালে কোনো পানি না থাকায় আগুনে পানি দেওয়া সম্ভব হয়নি।

রাতেই বন বিভাগের নিজস্ব ফায়ার ফাইটিং ইকুপমেন্ট ও পানি দেওয়ার মেশিনে এনে সেটি রেডি করে পাইপ লাগিয়ে সেট করে রাখা হয়।

রবিবার ভোর থেকেই বন বিভাগের কর্মী, ফায়ার সার্ভিস, স্থানীয় জনগণ, সিপিজি, সিএমসির লোকদের নিয়ে আগুন লাগার স্থানে চারদিকে ফায়ার লাইন কাটার পাশাপাশি পানি দিয়ে আগুন নেভানোর কাজ পুরোদমে শুরু করে।

আগুন লাগার স্থানের চারদিকে প্রায় ৫ একর জায়গা জুড়ে ফায়ার লাইন কেটে আগুন নেভানোর কাজ চলছে। যেহেতু আগুন মাটির নিচ দিয়ে গাছের শিকড়ের মধ্যে দিয়ে ছড়িয়ে পড়েছে, তাই সতর্কতার সঙ্গে আগুন নিভাতে হচ্ছে। আগামী কয়েক দিন আগুন নেভানোর কাজ চলবে বলে বিবৃতিতে জানানো হয়।

বনের আগুন আপাতত নিভে গেছে বা নিয়ন্ত্রণে এসেছে বলে মনে হলেও আবার যেকোনো সময় এটি নতুনভাবে ছড়িয়ে পড়তে পারে।

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনমন্ত্রী সাবের হোসেন চৌধুরী এবং মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. ফারহিনা আহমেদ সুন্দরবনের আগুন নির্বাপন কর্মকাণ্ড সার্বক্ষণিকভাবে তদারকি ও সমন্বয় করছেন।

এছাড়া প্রধানমন্ত্রী বিষয়টি জানেন এবং তিনি নিয়মিত খোঁজখবর রাখছেন বলেও জানানো হয়।

এ কর্মকাণ্ড সরেজমিনে তদারকি করতে প্রধান বন সংরক্ষক মো. আমীর হোসাইন চৌধুরী সুন্দরবনের ঘটনাস্থলে গিয়েছেন। তিনি এ বিষয়ে সর্বশেষ অগ্রগতি ও কর্মপন্থা বিষয়ে আজ সন্ধ্যা সাড়ে ৮টায় খুলনায় সুন্দরবন পশ্চিম বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তার কার্যালয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফ করবেন।