ঢাকা ০৪:৫২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

‘দুর্নীতি-লুটপাট আড়াল করতে বাংলাদেশ ব্যাংকে সাংবাদিক প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা’

  • বার্তা কক্ষ
  • আপডেট সময় : ০৫:০০:৪২ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৮ এপ্রিল ২০২৪
  • ২৬ বার পড়া হয়েছে

 

বাংলাদেশ ব্যাংক কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রবেশে বিধিনিষেধ আরোপ করায় সরকারের কঠোর সমালোচনা করেছে বিএনপি। আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য ও তাদের ঘনিষ্ঠ সহযোগীদের দুর্নীতি ও লুটপাটের বিষয়টি আড়াল করতেই এ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে মনে করে দলটি।

রবিবার এক বিক্ষোভ সমাবেশে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, বিভিন্ন ব্যাংক থেকে বিপুল পরিমাণ টাকা লুট হয়ে গেছে এবং অপরাধীরা আর কেউ নয়, এমপি-মন্ত্রী বা তাদের ঘনিষ্ঠ সহচররা।

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া, বিএনপি নেতা হাবিব-উন-নবী সোহেল ও আবদুল কাদের ভূঁইয়া জুয়েলের নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ করেন ছাত্রদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলের সাবেক নেতাকর্মীরা।

রিজভী আরও বলেন, ‘লুটপাট ও দুর্নীতির তথ্য যাতে প্রকাশ করতে না পারে সেজন্য সাংবাদিকদের এখন বাংলাদেশ ব্যাংকে প্রবেশে বাধা দেওয়া হয়েছে। কারণ অপরাধীরা সব সময় নিজেদের পাপ ঢাকতে চায়।’

কেন্দ্রীয় ব্যাংকে সাংবাদিকদের প্রবেশাধিকারের ওপর বিধিনিষেধ আরোপের তীব্র নিন্দা জানান তিনি।

সম্প্রতি, বাংলাদেশ ব্যাংক সাংবাদিকদের প্রবেশের ওপর বিধিনিষেধ আরোপ করেছে, যার প্রতিবাদ জানিয়েছে গণমাধ্যমকর্মীরা ও বিভিন্ন সংগঠন।

বৃহস্পতিবার ব্যাংকটির মুখপাত্র মেজবাউল হক ঘোষণা দেন, এখন থেকে ব্যাংকটির কর্মকর্তাদের সঙ্গে দেখা করতে সাংবাদিকদের সুনির্দিষ্ট অনুমতি নিতে হবে। এর মাধ্যমে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কোনো বিভাগে সাংবাদিকদের অবাধে প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

রিজভী বলেন, ‘বিএনপি নেতাকর্মীসহ অন্যান্য সত্য উদ্ঘাটনকারীরা আজ কারাগারে, আর যারা ব্যাংক ডাকাতি, লুটপাট, নারী ও শিশু নির্যাতন, মানুষের জমি-মাটি-ঘরবাড়ি দখল, নদী-খাল ও জলাশয় দখল, অন্যায় ও ভোট ডাকাতিতে লিপ্ত তারা সারা দেশে ঘুরে বেড়াচ্ছে।’

ক্ষমতাসীন দলের নেতারা অবৈধভাবে ক্ষমতায় থেকে সারাদেশে নানা ধরনের অপকর্ম ও রক্তপাতের ঘটনা ঘটাচ্ছে এটা এখন প্রমাণিত হয়েছে বলে দাবি করেন তিনি।

দেশের মানুষকে হত্যা, অর্থ লুটপাট ও নানা অপকর্মে লিপ্ত থাকার জন্য আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের অলিখিত লাইসেন্স দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেন বিএনপি মহাসচিব।

তিনি বলেন, ‘লুটপাট ও ব্যাপক দুর্নীতির শাসন, চোর ও লুটেরাদের লালন-পালনের শাসন চলছে। তারা ক্ষমতায় থাকলে দেশের মানুষের বাড়িঘর, জমি-জমাট সব বিক্রি করে দেবে।’

সরকার ও ক্ষমতাসীন দলের নেতা-কর্মীদের অপকর্ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানান বিএনপি মহাসচিব।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনার বর্তমান সরকারের পতন না হওয়া পর্যন্ত সব প্রতিকূলতা মোকাবিলা করে বিএনপি আন্দোলন চালিয়ে যাবে।

রিজভী বলেন, ‘এই সরকারকে উৎখাত করা না গেলে কোনো জনগণের নিরাপত্তা ও অধিকার থাকবে না।’

ট্যাগস :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

আপলোডকারীর তথ্য

পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপনে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশনা

‘দুর্নীতি-লুটপাট আড়াল করতে বাংলাদেশ ব্যাংকে সাংবাদিক প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা’

আপডেট সময় : ০৫:০০:৪২ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৮ এপ্রিল ২০২৪

 

বাংলাদেশ ব্যাংক কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রবেশে বিধিনিষেধ আরোপ করায় সরকারের কঠোর সমালোচনা করেছে বিএনপি। আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য ও তাদের ঘনিষ্ঠ সহযোগীদের দুর্নীতি ও লুটপাটের বিষয়টি আড়াল করতেই এ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে মনে করে দলটি।

রবিবার এক বিক্ষোভ সমাবেশে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, বিভিন্ন ব্যাংক থেকে বিপুল পরিমাণ টাকা লুট হয়ে গেছে এবং অপরাধীরা আর কেউ নয়, এমপি-মন্ত্রী বা তাদের ঘনিষ্ঠ সহচররা।

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া, বিএনপি নেতা হাবিব-উন-নবী সোহেল ও আবদুল কাদের ভূঁইয়া জুয়েলের নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ করেন ছাত্রদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলের সাবেক নেতাকর্মীরা।

রিজভী আরও বলেন, ‘লুটপাট ও দুর্নীতির তথ্য যাতে প্রকাশ করতে না পারে সেজন্য সাংবাদিকদের এখন বাংলাদেশ ব্যাংকে প্রবেশে বাধা দেওয়া হয়েছে। কারণ অপরাধীরা সব সময় নিজেদের পাপ ঢাকতে চায়।’

কেন্দ্রীয় ব্যাংকে সাংবাদিকদের প্রবেশাধিকারের ওপর বিধিনিষেধ আরোপের তীব্র নিন্দা জানান তিনি।

সম্প্রতি, বাংলাদেশ ব্যাংক সাংবাদিকদের প্রবেশের ওপর বিধিনিষেধ আরোপ করেছে, যার প্রতিবাদ জানিয়েছে গণমাধ্যমকর্মীরা ও বিভিন্ন সংগঠন।

বৃহস্পতিবার ব্যাংকটির মুখপাত্র মেজবাউল হক ঘোষণা দেন, এখন থেকে ব্যাংকটির কর্মকর্তাদের সঙ্গে দেখা করতে সাংবাদিকদের সুনির্দিষ্ট অনুমতি নিতে হবে। এর মাধ্যমে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কোনো বিভাগে সাংবাদিকদের অবাধে প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

রিজভী বলেন, ‘বিএনপি নেতাকর্মীসহ অন্যান্য সত্য উদ্ঘাটনকারীরা আজ কারাগারে, আর যারা ব্যাংক ডাকাতি, লুটপাট, নারী ও শিশু নির্যাতন, মানুষের জমি-মাটি-ঘরবাড়ি দখল, নদী-খাল ও জলাশয় দখল, অন্যায় ও ভোট ডাকাতিতে লিপ্ত তারা সারা দেশে ঘুরে বেড়াচ্ছে।’

ক্ষমতাসীন দলের নেতারা অবৈধভাবে ক্ষমতায় থেকে সারাদেশে নানা ধরনের অপকর্ম ও রক্তপাতের ঘটনা ঘটাচ্ছে এটা এখন প্রমাণিত হয়েছে বলে দাবি করেন তিনি।

দেশের মানুষকে হত্যা, অর্থ লুটপাট ও নানা অপকর্মে লিপ্ত থাকার জন্য আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের অলিখিত লাইসেন্স দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেন বিএনপি মহাসচিব।

তিনি বলেন, ‘লুটপাট ও ব্যাপক দুর্নীতির শাসন, চোর ও লুটেরাদের লালন-পালনের শাসন চলছে। তারা ক্ষমতায় থাকলে দেশের মানুষের বাড়িঘর, জমি-জমাট সব বিক্রি করে দেবে।’

সরকার ও ক্ষমতাসীন দলের নেতা-কর্মীদের অপকর্ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানান বিএনপি মহাসচিব।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনার বর্তমান সরকারের পতন না হওয়া পর্যন্ত সব প্রতিকূলতা মোকাবিলা করে বিএনপি আন্দোলন চালিয়ে যাবে।

রিজভী বলেন, ‘এই সরকারকে উৎখাত করা না গেলে কোনো জনগণের নিরাপত্তা ও অধিকার থাকবে না।’